হোম শিক্ষাঙ্গন শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাসে অসন্তোষ, অনশনের ডাক নন-এমপিও শিক্ষকদের

শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাসে অসন্তোষ, অনশনের ডাক নন-এমপিও শিক্ষকদের

10
0
শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাসে অসন্তোষ, অনশনের ডাক নন-এমপিও শিক্ষকদের

বিটিএন২৪ রিপোর্ট: শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির আশ্বাসে আন্দোলনকারী নন-এমপিও শিক্ষকরা অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। এ কারণে সোমবার (২১ অক্টোবর) থেকে অনশনে বসার ঘোষণা দিয়েছেন তারা।

রোববার (২০ অক্টোবর) রাতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা শেষে ফিরে এসে তারা এ ঘোষণা দেন।

আলোচনায় শিক্ষামন্ত্রী বলেন, সুনির্দিষ্ট মানদণ্ডের ভিত্তিতেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এমপিও দেয়া হবে। বিদ্যমান এমপিও নীতিমালা সংশোধন করা হবে। পরিবর্তিত নীতিমালা অনুযায়ী এখন থেকে প্রতিবছর এমপিও দেয়া হবে। এমপিও প্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানসমূহের মান নিয়মিত মনিটর করা হবে এবং যারা নীতিমালা অনুযায়ী ফলাফল করবে না তাদের এমপিও বাতিল করা হবে।

তিনি বলেন, বর্তমান নীতিমালা অনুযায়ী এ বছরের এমপিও চূড়ান্ত করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে নতুন কোনো প্রতিষ্ঠানের অন্তর্ভুক্তির সুযোগ নেই। এর ব্যত্যয় হলে আদালতে মামলা হবে। ফলে যোগ্য বিবেচিত হওয়া সকল এমপিও বন্ধ হয়ে যাবে। তাই আন্দোলন ছেড়ে ক্লাসে ফেরার আহ্বান জানান শিক্ষামন্ত্রী।

মন্ত্রীর এ আশ্বাসে সন্তুষ্ট নন স্বীকৃতিপ্রাপ্ত নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আন্দোলনরত শিক্ষকরা। এ কারণে সভা শেষে মন খারাপ করে বেরিয়ে এসেছেন বলে জানিয়েছেন সভায় উপস্থিত একাধিক শিক্ষক।

নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি গোলাম মাহামুন্নবী ডলার রোববার রাতে বলেন, শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাসে আমরা সন্তুষ্ট না। তিনি (শিক্ষামন্ত্রী) আমাদের আন্দোলন ছেড়ে বাড়ি ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। আমাদের দাবি আদায় না হওয়ায় এ আশ্বাসে আমরা ফিরে যাচ্ছি না।

তিনি বলেন, মন্ত্রীর সঙ্গে সভা শেষে আমরা শিক্ষকরা মিলে বৈঠক করেছি। সেখানে দাবি আদায়ে সোমবার (২১ অক্টোবর) সকাল ১০টা থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রধান রাস্তার ফুটপাতে অনশনে বসবো।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সঙ্গে ফোনালাপের মাধ্যমে এ বৈঠকের সিদ্ধান্ত হয়। সারা দেশে স্বীকৃতিপ্রাপ্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা একযোগে এমপিওভুক্তির দাবিতে ১৪ অক্টোবর থেকে আন্দোলন করে আসছেন। গত শুক্রবার থেকে আমরণ অনশনে যাওয়ার কথা থাকলেও শিক্ষামন্ত্রীর ফোন পেয়ে তা স্থগিত করেন শিক্ষকরা।