হোম জাতীয় মুক্তিযোদ্ধাকে অপমানের প্রতিবাদে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ঘেরাও

মুক্তিযোদ্ধাকে অপমানের প্রতিবাদে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ঘেরাও

12
0

বিটিএন২৪ রিপোর্ট: দিনাজপুরের মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন ও তার পরিবারকে অপমান করার অভিযোগে দিনাজপুর জেলা প্রশাসক, সদরের ইউএনও এবং এসিল্যান্ডের স্থায়ী বরখাস্ত এবং গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধন ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ঘেরাও করেছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

মঙ্গলবার (২৯ অক্টোবর) সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে আয়োজিত মানববন্ধন শেষে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ঘেরাও কর্মসূচি পালন করে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

মানববন্ধন শেষে একটি মিছিল নিয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় অভিমুখে পদযাত্রা করে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের নেতারা। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ঘেরাও করতে গেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে পুলিশ মিছিল আটকে দেয়। এরপর আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ৫ জনের প্রতিনিধি দলকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ প্রতিমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি হস্তান্তর করে।

গত ২৩ অক্টোবর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃতু্যবরণ করেন দিনাজপুর সদর উপজেলার ৬নং আউলিয়াপুর ইউনিয়নের যোগীবাড়ি গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মো. ইসমাইল হোসেন। মৃতু্যর আগে জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিমের কাছে একটি চিঠি লেখেন তিনি।

সেখানে তিনি বলেন, জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে হঠাৎ যদি আমার মৃত্যু হয়, আমাকে যেন রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন না করা হয়। কারণ এসিল্যান্ড, ইউএনও, এডিসি, ডিসি যারা আমার ছেলেকে চাকরিচ্যুত, বাস্তুচ্যুত করে পেটে লাথি মেরেছে, তাদের সালাম-স্যালুট আমার শেষ যাত্রার কফিনে চাই না। ভুল-ত্রুটি ক্ষমা করিও। চিঠিতে এসিল্যান্ড, ইউএনও, এডিসি, ডিসির বিরুদ্ধে অভিযোগ আনেন তিনি।

মানববন্ধনে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, দিনাজপুরের ডিসি মাহমুদুল আলম একজন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে অপমান করে বঙ্গবন্ধু এবং সকল বীর মুক্তিযোদ্ধাকে অপমান করেছে। আমরা অবিলম্বে তার স্থায়ী বরখাস্ত দাবি করছি।

সাধারণ সম্পাদক মো. আল মামুন বলেন, “জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন এবং তার পরিবারের সাথে অমানবিক আচরণ ও অপমান করার অপরাধে দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক, ইউএনও এবং এসিল্যান্ডের স্থায়ী বরখাস্ত এবং গ্রেফতারের দাবিতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছিলাম। পরে দাবি না মানায় আমরা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ঘেরাও করতে যায়। আমরা জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রীকে স্পষ্ট করে বলেছি যে, এসিল্যান্ড আরিফুল ইসলামকে প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তকে আমরা প্রত্যাখ্যান করেছি। বীর মুক্তিযোদ্ধাকে অপমান করে তার নিজ রুম থেকে বের করে দিয়েছেন জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলম। আমরা তাদের স্থায়ী বরখাস্ত এবং আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার দাবি করছি। তিনি আমাদের দাবি পূরণের আশ্বাস দিয়েছেন। আমরা বলেছি, আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে দাবি পূরণ না করলে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কঠোর কর্মসূচি দিয়ে সারাদেশে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলবে।

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. আল মামুনের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল।

আরও বক্তব্য রাখেন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সনেট মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক ইয়াসির আরাফাত তূর্য, ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার সভাপতি আহমেদ হাসনাইন, সাধারণ সম্পাদক সোহেল মিয়া, উত্তরের সভাপতি সোহেল রানা, সাধারণ সম্পাদক ইমরান হোসেন প্রমুখ।