মালয়েশিয়ায় ডিসেন্ট ওয়ার্ক কান্ট্রি প্রোগ্রাম গ্রহণ

8

বিটিএন২৪ রিপোর্ট: মালয়েশিয়া সরকার এসডিজি টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জনের জন্য ডিসেন্ট ওয়ার্ক কান্ট্রি প্রোগ্রাম ২০১৯-২০২৫ গ্রহণ করেছে। জেনেভায় অনুষ্ঠিত আইএলওর কনভেনশনে মালয়েশিয়া সরকার, শ্রমিক ও নিয়োগকর্তার সংগঠন এবং আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) যৌথভাবে ২০২৫ সালের মধ্যে ডিসেন্ট ওয়ার্ক কান্ট্রি প্রোগ্রাম (ডিডব্লিউসিপি) বাস্তবায়নে সম্মত হয়েছে।

গত ১৯ জুন আইএলওর আন্তর্জাতিক শ্রম সম্মেলনের শতাব্দীর অধিবেশনে জেনেভায় জাতিসংঘে এ সংক্রান্ত একটি সমঝোতা স্মারকে মালয়েশিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী এম কুলাসেগারান, মালয়েশিয়ান ট্রেড ইউনিয়নের সেক্রেটারি জেনারেল সলমান, মালয়েশিয়ান এমপ্লয়ার্স ফেডারেশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট এ রামাদাস এবং আইএলওর এশিয়া অ্যান্ড দি প্যাসিফিক রিজিওনের আঞ্চলিক পরিচালক মিজ তমকা নিশিমটো স্বাক্ষর করেন।

ডিসেন্ট ওয়ার্ক কান্ট্রি প্রোগ্রাম (ডিডাব্লিউসিপি) মালয়েশিয়া ও আইএলওর মধ্যে পাঁচ বছর মেয়াদী সহযোগিতা কাঠামো প্রদান করবে। এসডিজির লক্ষ্য অর্জনে মালয়েশিয়ায় আইএলওর কর্ম সহযোগিতাকে আরও শক্তিশালী করবে।

মালয়েশিয়ার ডিডাব্লিউসিপি কাজের তিনটি সমন্বিত ক্ষেত্রকে অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে।

সেগুলো হলো- কর্মক্ষেত্রে অধিকার : অধিকারের সুরক্ষা প্রদান এবং অধিকার বিষয়ে প্রচার করা।
কাজের ভবিষ্যৎ : বর্তমান ও ভবিষ্যতের কাজের চাহিদা মেটানোর জন্য জাতীয় ক্ষমতা শক্তিশালীকরণ।
শ্রম মাইগ্রেশন : শ্রম মাইগ্রেশন গভর্নেন্স শক্তিশালীকরণ।

ডব্লিউসিপি বাস্তবায়নে ত্রিপক্ষীয় (আইএলও, সরকার এবং মালিক ও শ্রমিক সংগঠন) প্রচেষ্টার জন্য প্রশংসা করে মিসেস টমোকো নিশিমোটো বলেন, ‘আমরা মালয়েশিয়াকে ডিসেন্ট ওয়ার্ক প্রোগ্রামের মাধ্যমে শ্রম অবস্থার শক্তিশালী উন্নয়নে সহযোগিতা করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

মালয়েশিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী এম কুলাসেগারান আইএলওর সমর্থনের জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন, ‘এর ফলে ডিসেন্ট ওয়ার্ক বা শালীন কর্মক্ষেত্র বাস্তবায়নে মালয়েশিয়ার সরকার ও সামাজিক অংশীদারদের সদিচ্ছার প্রকাশ ঘটেছে। এ কর্মসূচিকে স্বাধীনতা, ইক্যুইটি, নিরাপত্তা ও মানব মর্যাদার আলোকে মালয়েশিয়ার উন্নয়ন নীতির কেন্দ্রস্থলে রাখা হয়েছে।’

এমটিইউসির মহাসচিব সলোমন বলেন, ‘এমটিইউসি মালয়েশিয়া সরকারের এ কর্মসূচি বাস্তবায়নে শক্তিশালী সহযোগিতা দিয়ে যাবে। আমরা আশাবাদী ডিডাব্লিউসিপি সুসংগত শিল্প সম্পর্ক গড়ে তোলার এবং বিকাশের আদর্শ প্ল্যাটফর্ম হিসেবে মালয়েশিয়ার শ্রমিকদের স্বার্থ রক্ষা ও উন্নয়ন ঘটাবে।’

এমইএফ ভাইস প্রেসিডেন্ট এ রামাদাস বলেন, ‘এমইএফ দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে যে সমষ্টিগতভাবে এবং একত্রে কাজ করে নিয়োগকর্তারা সবার জন্য উপযুক্ত এবং উৎপাদনশীল কর্ম নিশ্চিত করবে।’

এদিকে মালয়েশিয়া ডিসেন্ট ওয়ার্ক কান্ট্রি প্রোগ্রাম ২০১৯-২০২৫ গ্রহণ করায় বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ মালয়েশিয়ার সরকার, এমটিইউসি, এমইএফ এবং আইএলওকে অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক এ প্রোগ্রাম গ্রহণ করায় মালয়েশিয়ায় স্থানীয় ও প্রবাসী কর্মীদের অধিকার সুরক্ষা প্রদানে সরকারের সদিচ্ছার প্রকাশ ঘটলো। এটি বাস্তবায়নের মাধ্যমে আন্তর্জাতিকভাবে শ্রম ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে মালয়েশিয়ার অবস্থান অধিকতর উন্নত করবে। বিদেশি কর্মীদের প্রতি এটি মালয়েশিয়া সরকারের ও জনগণের বিশেষ উপহার।’

মালয়েশিয়া সরকারের মানবসম্পদমন্ত্রীকেও ধন্যবাদ, কৃতজ্ঞতা এবং অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রবাসীকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ।