হোম আলাপচারিতা মানুষ না দেবী!

মানুষ না দেবী!

142
মানুষ না দেবী!
তাজনিন সুলতানা
তাজনিন সুলতানা

তুমি স্বর্ণলতা!
না লতা বিহীন কাঞ্চাসোনা!
তোমাকে যতবার দেখি চোখের ভ্রম ভেবে ভুল করি,
তোমার শরীরে রক্তস্রোত প্রবাহিত হয় কি?
নাকি তোমার দেহখানি শতশত যুগ আগের তৈরি শ্বেত পাথরের কোনো দেবীমূর্তি!!
তোমাকে দেখেছি সেই একদিন;
হেমন্তের বৈকালিক রৌদ্রের ন্যায়
তোমার দেহখানি-
অরণ্য দীঘির কাকচক্ষু জলের ন্যায় স্বচ্ছতা তোমার চোখের নীলে,
ভেজা শিউলি ফুলের পরশ পেতে ব্যাকুলিত তোমার কাপা কাপা রক্তরাঙা উষ্ণ দুটিঠোঁট।
তোমাকে দেখেছি সেই একদিন;
হেমন্তের গোধূলিতে গ্রামের আলপথে ধূসর কুয়াশার কোলে,
পা’দুটি যেন নরম ঘাস মাড়িয়ে চলতে গিয়ে বারংবার কুণ্ঠাবোধে লুটিয়ে পড়ে,
সন্ধ্যার একবিন্দু শিশিরসিক্ত জল তোমার স্পর্শে পরম আহ্লাদে গড়িয়ে পড়ে,
চুলের বিনুনিতে একখন্ড বকুল ফুলের মালা সুভাস ছড়িয়ে ভালোবাসায় আঁকড়ে রাখে।
তোমাকে দেখেছি সেই একদিন
যৌবনা হরিণীর মতো চঞ্চলা -সেই তুমি!
তোমার চোখের চাহনি আর মায়ামাখা হাসি দেখেছি সেইদিন।
তবে জানতে চাইনি কি তুমি!মানুষ না দেবী?
অথবা কে তুমি!