হোম জাতীয় ‘ভূমি অধিগ্রহণে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনে সহায়তা করা হবে’

‘ভূমি অধিগ্রহণে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনে সহায়তা করা হবে’

13
0
‘ভূমি অধিগ্রহণে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনে সহায়তা করা হবে’

বিটিএন২৪ রিপোর্ট: দেশের উন্নয়নে ভূমি অধিগ্রহণে ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণের পাশাপাশি পুনর্বাসনে সহায়তা করা হবে বলে জানিয়েছেন ভূমি সচিব মো. মাক্ছুদুর রহমান পাটোয়ারী।

বৃহস্পতিবার (২৪ অক্টোবর) সচিবালয়ে ভূমি মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ‘ভূমি অধিগ্রহণে ক্ষতিগ্রস্তদের জাতীয় পুনর্বাসন নীতিমালা ২০১৯’ চূড়ান্তকরণের লক্ষ্যে আয়োজিত কর্মশালায় এ কথা বলেন তিনি।

মাক্ছুদুর রহমান পাটোয়ারী বলেন, ‘প্রচলিত অধিগ্রহণ আইন ও অধ্যাদেশে জমি-অধিগ্রহণে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের কোনো আইনি বিধান ছিল না। ভূমি অধিগ্রহণ কার্যক্রম যুগোপযোগী ও আরও গতিশীলতা আনয়নের লক্ষ্যে প্রণীত ‘স্থাবর সম্পত্তি অধিগ্রহণ ও হুকুমদখল আইন, ২০১৭’-এর ৯ ধারার (৪) উপধারা অনুযায়ী জমি অধিগ্রহণে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের নীতিমালা করছে সরকার।’

উল্লেখ্য, অধিগ্রহণ আইনের উপ-ধারাটিতে উল্লেখ করা আছে, ‘এ ধারায় উল্লিখিত ক্ষতিপূরণ প্রদান ব্যতীত, নির্ধারিত পদ্ধতিতে, অধিগ্রহণের কারণে বাস্তুচ্যুত পরিবারকে পুনর্বাসনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাবে।’

তিনি কর্মশালায় অংশগ্রহণকারী কর্মকর্তাদের মাঠ পর্যায়ের অফিস পরিদর্শন ও পরে অগ্রগতি পর্যবেক্ষণ, গণশুনানি, স্বচ্ছতার সঙ্গে ক্ষতিপূরণের অর্থ প্রদান এবং সঠিকভাবে ভূমি রাজস্ব আহরণে আরও ভালোভাবে কাজ করার নির্দেশ প্রদান করেন।

ভূমি সচিব জানান, ভূমিসেবা হটলাইন ১৬১২২ এ প্রাপ্ত অভিযোগগুলো মন্ত্রী ও তিনি নিয়মিত মনিটরিং করছেন।

বিভিন্ন মন্ত্রণালয় থেকে আগত যুগ্মসচিব ও উপ-সচিব পর্যায়ের প্রতিনিধি, বিভিন্ন জেলার জেলা প্রশাসক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) ও ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তারা কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেন। তারা চার দলে ভাগ হয়ে ‘ভূমি অধিগ্রহণে ক্ষতিগ্রস্তদের জাতীয় পুনর্বাসন নীতিমালা ২০১৯’ পরিমার্জনের ব্যাপারে নিজেদের মতামত তুলে ধরেন।

ভূমি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (অধিগ্রহণ) মো. সিরাজ উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে কর্মশালায় আরও উপস্থিত ছিলেন ভূমি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. মজিবর রহমান, মো. আবদুল হক, আনিস মাহমুদ ও ঢাকার বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ জয়নুল বারী।

উল্লেখ্য, জাতীয় বাস্তবতা ও দেশের উন্নয়ন আবশ্যকতার প্রেক্ষাপটে অনিবার্য ভূমি অধিগ্রহণে সৃষ্ট বিরূপ সামাজিক প্রভাব ও স্থানচ্যুতিজনিত সমস্যা নিরসনে এ নীতিমালা প্রণয়ন করা হবে। নীতিমালা অনুযায়ী ক্ষতিপূরণ ছাড়াও বিকল্প বাসস্থান, জমি, প্লট, ফ্ল্যাট বা অ্যাপার্টমেন্ট, ক্ষতিপূরণের অতিরিক্ত নগদ অর্থ কিংবা বিকল্প কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা থাকবে।

এ নীতিমালার প্রধান উদ্দেশ্য দারিদ্র্য দূরীকরণে সরকারের অঙ্গীকার বাস্তবায়ন, টেকসই উন্নয়ন অভিলক্ষ্য (এসডিজি) অর্জন, ভূমি অধিগ্রহণে বাস্তুচ্যুত ও ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার অথবা ব্যক্তি বিশেষের অধিকার সুরক্ষা, উৎপাদনমূলক ও টেকসই ব্যবস্থার মাধ্যমে ভূমি অধিগ্রহণে বাস্তুচ্যুত ও ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার অথবা ব্যক্তিকে পুনর্বাসন, পুনর্বাসিত জনগণ যেন জীবনমান পুনর্গঠন অথবা উন্নত করতে সক্ষম হয় এজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করা। এছাড়া ক্ষতিপূরণ ও পুনর্বাসন সহায়তা ছাড়াও প্রযোজ্য ক্ষেত্রে প্রকল্পের সুফল ভাগাভাগির বিষয়টি বিবেচনা করা।