প্রণোদনা নয়, ১৫ দফা দাবি ওমান প্রবাসীদের

7

বিটিএন২৪ রিপোর্ট: প্রবাসীদের জন্য প্রথমবারের মতো সরকারের থেকে রেমিট্যান্স প্রেরণে প্রণোদনা পুরস্কার হাজারে ২০ টাকা ঘোষণা করার পর প্রবাসীদের পক্ষ থেকে সরকারকে ধন্যবাদ দিলেও ভিন্নমত পোষণ করছেন বেশিরভাগ প্রবাসী।

তাদের দাবি, ‘আমরা বিশ টাকা চাই না, আমাদের এয়ারপোর্ট হয়রানিসহ অন্যান্য হয়রানি বন্ধ করা হোক এবং সেইসঙ্গে আরও মূল্যায়ন করা হোক।

বিশ্বের নানা দেশ থেকে প্রবাসীরা সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবি জানিয়ে আসছেন। সেইসাথে প্রবাসের বিভিন্ন বাংলাদেশি কমিউনিটির সংগঠনও এমন দাবির সঙ্গে একমত পোষণ করেছে। সম্প্রতি ওমানে বাংলাদেশ কমিউনিটির সর্ববৃহৎ সামাজিক সংগঠন ‘চট্টগ্রাম সমিতি ওমানে’র পক্ষ থেকে সরকারের কাছে দাবি তুলে ধরেন সংগঠনের সভাপতি ইয়াসিন চৌধুরী সিআইপি।

১) এয়ারপোর্টে প্রবাসীদের সবধরনের হয়রানি বন্ধ করতে হবে।

২) দূতাবাসের সব কর্মকর্তা কর্মচারীদের প্রবাসীদের সেবক হিসেবে কাজ করতে হবে। সেবার মান বাড়াতে হবে। আমলাদের জবাবদিহিতা বাড়াতে হবে।

৩) প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রীকে অব্যশই প্রবাসীদের থেকে নিয়োগ দিতে হবে। কারণ একজন প্রবাসী বুঝবে আরেকজন প্রবাসীর সুখ দুঃখ।

৪) প্রবাসীরা বিদেশে মারা গেলে সম্পূর্ণ সরকারি খরচে দূতাবাসের মাধ্যমে লাশ দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে।

৫) প্রবাসীদের নিয়ে নাটক সিনেমা বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ট্রল করে ভিডিও বানানো বা কুরুচিপূর্ণ কথা বলা বন্ধ করতে হবে। এমন কোনো কাজ করা যাবে না যে কারণে প্রবাসীদের অনুভূতিতে আঘাত হানে।

৬) প্রবাসীদের পরিবারকে দেশে হয়রানি বা নির্যাতন থেকে পরিপূর্ণ নিরাপত্তা দিতে হবে।

৭) পাসর্পোট অফিসে হয়রানি বন্ধ করতে হবে এবং দালালমুক্ত পাসপোর্ট অফিস করতে হবে। দূতাবাসগুলোতে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব পাসপোর্ট ডেলিভারি দেয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

৮) বিদেশে নিরাপরাধ জেলে বন্দীদের সরকারি খরচে দেশে নিয়ে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে।

৯) প্রবাস ফেরত ব্যক্তিদের দেশে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে।

১০ প্রবাসীদের জন্য কোটা রাখতে হবে এবং প্রবাসীদের ছেলে-মেয়েদের জন্য স্কু কলেজে বিশেষ সুযোগ দিতে হবে।

১১ যে কোনো প্রবাসী ২০ বছর প্রবাস জীবন কাটানোর পর দেশে ফেরত গেলে তাদেরকে সরকারের পক্ষ থেকে মাসিক ভাতা প্রদান করতে হবে।

১২ যেসব প্রবাসী টাকার অভাবে বিদেশে চিকিৎসা করতে পারছে না তাদেরকে দেশে ফেরত পাঠিয়ে বা বিদেশে সরকারি খরচে চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে।

১৩ প্রবাসী রোগীদেরকে বাংলাদেশ বিমানে বিনাখরচে দেশে যাওয়ার সুযোগ দিতে হবে।

১৪ প্রবাসীদের দূতাবাসের মাধ্যমে ভোটার আইডি কার্ড বা স্মার্ট কার্ড প্রদান করতে হবে।

১৫ প্রবাসীদেরকে বাংলাদেশের যে কোন নির্বাচনে দূতাবাসের মাধ্যমে তাদের ভোট দেয়ার ব্যবস্থা বাস্তবায়ত করতে হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা গেছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে ১ হাজার ১৮৭ কোটি ডলারের সমপরিমাণ রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় যা ১১১ কোটি ডলার বা ১০ দশমিক ৩০ শতাংশ বেশি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা যাচ্ছে, এককভাবে গত মার্চে ১৫৯ কোটি ডলারের সমপরিমাণ অর্থ দেশে পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। আগের বছরের একই মাসে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৩০ কোটি ডলার। গত ফেব্রুয়ারিতে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৩২ কোটি ডলার। এ হিসাবে আগের বছরের একই মাস বা আগের মাসের তুলনায় রেমিট্যান্স বেড়েছে।

গত মাসে বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ১১০ কোটি ডলার। সরকারি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ৩৪ কোটি ৭৭ লাখ এবং বিদেশি ব্যাংক এনেছে এক কোটি ২৪ লাখ ডলার।