হোম বিভাগীয় নোয়াখালীর কবিরহাটে ধর্ষকের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

নোয়াখালীর কবিরহাটে ধর্ষকের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

বিটিএন২৪ বিভাগীয় প্রতিনিধি: কবিরহাট উপজেলার ধানসিঁড়ি ইউনিয়নের নবগ্রামে ঘরের সিঁধ কেটে তিন সন্তানের জননীকে গণধর্ষণের ঘটনায় জড়িত আসামীদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে স্থানীয় এলাকাবাসী। এই ঘটনায় মামলায় এজাহারভুক্ত জহির ও সন্দেহজনকভাবে ভিকটিমের দেবরসহ আরো ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তবে স্থানীয় লোকজনের দাবী নতুন করে গ্রেপ্তারকৃত তিনজন নিরপরাধী।

রবিবার সকালে নবগ্রাম নিমতলা সমিতির বাজারে ঘন্টব্যাপী এই কর্মসূচী পালন করা হয়।

মানববন্ধনে সহস্রাধিক নারী-পুরুষ ও বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করেন। মানববন্ধন থেকে অভিযুক্ত আসামীদের ফাঁসি দাবি করে বক্তব্য রাখেন, ধানসিঁিড় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইব্রাহিম খলিল, সমিতি বাজার পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. সাহাব উদ্দিন, ধানসিঁিড় ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি এনামুল হক, নবগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি নুরুল হক, নবগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক পলাশ চন্দ্র ভৌমিক প্রমুখ।

মানববন্ধন থেকে বক্ত্যারা সাধারন লোকজনকে হয়রানি না করে পুলিশকে নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করে অবিলম্বে মূল আসামীদের গ্রেপ্তার করে কঠোর শাস্তি প্রদানের দাবি জানান। অন্যথায় তারা আরো কঠোর কর্মসূচী দিবেন বলেও ঘোষণা দেন।

পুলিশ কোন নিরপরাধী লোকজনকে হয়রানি করছেনা দাবী করে কবিরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মির্জা মোহাম্মদ হাছান বলেন, গ্রেপ্তারকৃত জাকির হোসেন জহিরের দেওয়া তথ্যমতে রাতে নবগ্রামে অভিযান চালিয়ে অজি উল্যার ছেলে আব্দুর রব হোসেন মান্না (২১), ইমসাইলের ছেলে মো. সেলিম (২৫) ও মফিজুর রহমানের ছেলে হারুন অর রশিদ (৩০)কে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। দুপুরে তাদের আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, শুক্রবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে স্থানী মুদি ব্যবসায়ী জাকির হোসেন জহিরের নেতৃত্বে ৭জন স্থানীয় আবুল হোসেনের ঘরের সিঁধ কেটে ভিতরে প্রবেশ করে। এসময় তারা আবুল হোসেনের স্ত্রীর কাছে ৬০হাজার টাকা আছে বলে সেগুলো দিতে বলে। এনিয়ে ভিকটিমের সাথে তাদের তর্কবির্তক হয়। পরে তারা ঘরের বৈদ্যুতিক লাইট বন্ধ করে ভিকটিমের মা, ভিকটিমের এক ছেলে ও দুই মেয়েকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে তাদের মধ্যে তিনজন পালাক্রমে ভিকটিমকে গণধর্ষণ করে। পরে রাত আনুমানিক ৩টার দিকে ধর্ষকরা ঘর থেকে বের হয়ে যায়। এসময় তারা ঘরে থাকা নগদ টাকা, ২ভরি স্বর্ণ, মোবাইল ও মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। শনিবার দুপুরে ভিকটিমকে উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনায় ভিকটিম বাদী হয়ে জাকির হোসেন জহিরসহ অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন
অনুগ্রহ করে এখানে আপনার নাম লিখুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.