হোম বিটিএন২৪ জাতীয় দলের পাকিস্তান সফর, সিদ্ধান্ত আলোচনার পর

জাতীয় দলের পাকিস্তান সফর, সিদ্ধান্ত আলোচনার পর

27
0

বিটিএন২৪ রিপোর্ট: নিজেদের দেশে পুরোদমে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরানোর ব্যাপারে অনেক দূর এগিয়ে গেছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড। এরই মধ্যে সেখানে গিয়ে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলে এসেছে ২০০৯ সালের সন্ত্রাসী হামলার শিকার হওয়া শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দল। ডিসেম্বরে টেস্ট খেলতে যাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী লঙ্কানরা। এছাড়া জিম্বাবুয়ে, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, এমনকি আইসিসি স্বীকৃত প্রদর্শনীমূলক ম্যাচও হয়েছে পাকিস্তানে।

এসবের ব্যাপারে বাংলাদেশের মানুষদের আগ্রহ খুব একটা থাকার কারণ নেই। তবে আগামী বছর বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের পাকিস্তান সফরের কথা রয়েছে। যা সত্যিই আলোর মুখ দেখলে দুই টেস্ট ও তিন টি-টোয়েন্টি খেলবে বাংলাদেশ। আইসিসির ফিউচার ট্যুর প্ল্যানে আগামী জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে এই সফরের সময়সূচি উল্লেখ করা আছে।

তবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড এখনও নিশ্চিত নয় আদৌ হবে কি না সে সফরটি। যদিও অবস্থাদৃষ্টে যে কেউ ধরে নেবে আগামী বছর পাকিস্তান সফরে যাবে বাংলাদেশ। কেননা চলতি মাসেই পাকিস্তান সফরে গিয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় নারী ক্রিকেট দল এবং বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৬ দল। সরকারি পর্যায়ের নিরাপত্তা পর্যবেক্ষক দলের সবুজ সংকেত পেয়েই এ দুই দলকে পাকিস্তানকে পাঠিয়েছে বিসিবি। যদিও জাতীয় দলের ব্যাপারে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি তারা। এ বিষয়ে আরও পর্যবেক্ষণ এবং আলোচনা শেষেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছতে চায় বিসিবি।

বৃহস্পতিবার মিরপুরের শেরে বাংলায় উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে বোর্ডের প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন বলেন, ‘আপনারা জানেন, সরকারি পর্যায়ের একটি প্রতিনিধি দল পাকিস্তান সফরে গিয়েছিল। তাদের প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করেই বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৬ দল এবং বাংলাদেশ নারী দল পাকিস্তান সফরে গিয়েছে। এসব নিরাপত্তা পর্যবেক্ষণের ক্ষেত্রে বয়সভিত্তিক দল বা নারী দলের চাইতে জাতীয় দলকে অনেক বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়। আমরা তাই বাংলাদেশ হাইকমিশনারের যে প্রতিনিধি দল গিয়েছে বা আইসিসির সঙ্গে কথা বলে সিদ্ধান্তে যাব। আইসিসির একটি অ্যাসিসমেন্ট হয় এখানে। ওদের মতামতও দরকার। সবার সঙ্গে কথা বলেই আমরা সিদ্ধান্তে যাব।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি যেটা বললাম, একটি প্রতিনিধি দল পাকিস্তান সফর করেছে। বাংলাদেশ হাইকমিশনার এবং প্রতিনিধিদের রিপোর্টের কথাও আছে এখানে। আইসিসিও এখানে ম্যাচ অফিসিয়ালস দেয়। তাদেরও এখানে মতামত দিতে হয়, এই বিষয়ে সবার সঙ্গে আলোচনা করেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে হবে।’